February 11, 2019
কড়া নিরাপত্তায় সাতক্ষীরা কোটে জামায়াতের সাবেক আমীর আব্দুল খালেক

আলোরপরশ : সাতক্ষীরা: :মুক্তিযুদ্ধের সময় মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় সাবেক এমপি ও সাতক্ষীরা জামায়াতের সাবেক আমির অধ্যক্ষ মাওলানা আবদুল খালেক মোন্ডলকে নাশকতার একটি মামলায় সাতক্ষীরা কোটে হাজির করা হয়। হাত কড়া লাগিয়ে পুলিশ বেষ্টনির মধ্য দিয়ে সোমবার সাতক্ষীরা জজ কোটে একটি মামলায় চার্জ গঠনে শশীরে হাজির করানো হয়। বর্তমানে তাকে যশোর কারাগারে রাখা হয়। সাতক্ষীরা কোটে নাশকতার একটি মামায় তার বিরুদ্ধে বিচার চলছে।
আদালত থেকে বের হয়ে পরিবারের সদস্যদের দেখে তিনি আবেগ আব্লুভুত হয়ে পড়েন। পরিবারের সদস্যদের সাথে মিনিট খানিক মতবিনিময় করেন। এসময় তিনি বলেন, আমি নিদোষ। আমার বিরুদ্ধে কল্পিত অভিযোগ আনা হয়েছে। নিশ্চয় এর বিচার আল্লাহ করবেন।
একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধের সময় সাতক্ষীরা সদর, আশাশুনি ও কলারোয়া থানার বিভিন্ন এলাকায় হত্যা, গণহত্যা, নির্যাতন ও ধর্ষণের মতো মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগ এনে ২০১৫ সালের ৭ আগস্ট তার বিরুদ্ধে কথিত তদন্ত শুরু করেন আন্তজার্তিক ট্রাইব্যুনাল।
২০১৭ সালের ৫ ফেব্রুয়ারী তদন্ত শেষ ১৯ মার্চ এ মামলায় আনুষ্ঠানিক অভিযোগ দাখিল করা হয়।
২০১৫ সালের ১৬ জুন সাতক্ষীরা সদর উপজেলার খলিলনগর মহিলা মাদ্রাসায় নাশকতার উদ্দেশ্যে সহযোগীদের নিয়ে গোপন বৈঠক করার অভিযোগে পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে । একই বছর ২৫ আগস্ট তাঁর বিরুদ্ধে সাতক্ষীরায় দায়ের করা যুদ্ধাপরাধের তিনটি মামলার মধ্যে শহীদ মোস্তফা গাজী হত্যা মামলায় গ্রেফফতার দেখান ট্রাইব্যুনাল। শিমুলবাড়িয়া গ্রামের রুস্তম আলীসহ পাঁচজনকে হত্যার অভিযোগে ২০০৯ সালের ২ জুলাই মাওলানা আব্দুল খালেক মন্ডলের বিরুদ্ধে যুদ্ধাপরাধের মামলা করেন শহীদ রুস্তম আলীর ছেলে নজরুল ইসলাম গাজী।
আসামী পক্ষের আইন জীবির পক্ষ থেকে অভিযোগ করা হয় ,এই মামলায় অধ্যক্ষ মাওলানা আবদুল খালেক মোন্ডল সম্পূর্ণ নিদোষ। রাষ্ট্রীয় বিভিন্ন সুযোগ সুবিধা দিয়ে স্বাক্ষী ভাড়া করে মাওলানা আবদুল খালেক মোন্ডলের বিরুদ্ধে মিথ্যা ও কাল্পনিক অভিযোগ আনা হয়েছে। বেশির ভাগ স্বাক্ষীরা অধ্যক্ষ মাওলানা আবদুল খালেক মোন্ডলকে চেনে না। পরিবারের দাবী রাজনৈতিক ভাবে জামায়াতে ইসলামী নিহ্নিত করতেই মাওলানা আবদুল খালেক মোন্ডলকে যুদ্ধাপরাধ মামলায় জড়ানো হয়েছে।–

More News


সম্পাদক ও প্রকাশক মো: জিল্লুর রহমান

বাসা ও অফিস: পুরাতন সাতক্ষীরা, যোগাযোগ: ০১৭১৬৩০০৮৬১ - e-mail: zsatkhira@gmail.com