January 24, 2019
উন্নয়নের ধুয়ো তুলে ক্ষমতাসীনরা ভোটাধিকার কেড়ে নিয়েছে

আলোপরশ নিউজঃ   ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বোপার্জিত স্বাধীনতা চত্ত্বরে সড়ক দ্বীপে আয়োজিত আলোচনা সভায় জাতীয় নেতৃবৃন্দ স্বৈরতন্ত্র ও ফ্যাসিবাদের বিরুদ্ধে গণসংগ্রাম জোরদার করার আহ্বান জানিয়েছেন। তারা বলেন, উন্নয়নের ধুয়ো তুলে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ জনগণের ভোটাধিকার কেড়ে নিয়েছে। গোটা নির্বাচনী ব্যবস্থাকে ধ্বংস করে দিয়েছে।

৬৯’র গণঅভ্যুত্থানের ৫০তম বার্ষিকীতে বৃহস্পতিবার বিকালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বোপার্জিত স্বাধীনতা চত্ত্বরে সড়ক দ্বীপে এ আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

৬৯’র গণঅভ্যুত্থানের ৫০ বছর পালন জাতীয় কমিটির সমন্বয়ক বাংলাদেশের বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল হক এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন সিপিবি সভাপতি মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম, বাসদ (মার্কসবাদী) এর আহ্বায়ক মুবিনুল হায়দার চৌধুরী, জাতীয় গণফ্রন্টের সমন্বয়ক টিপু বিশ্বাস, বাসদের কেন্দ্রীয় নেতা রাজেকুজ্জামান রতন, জাতীয় মুক্তি কাউন্সিলের সাধারণ সম্পাদক ডা. ফয়জুল হাকিম, গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়ক জোনায়েদ সাকি, ইউনাইটেড কমিউনিস্ট লীগের সাধারণ সম্পাদক মোশাররফ হোসেন নান্নু, ইউপিডিএফ এর নেতা নতুন কুমার চাকমা, গরীব মুক্তি আন্দোলনের আহ্বায়ক শামসুজ্জামান মিলন, গণতান্ত্রিক বিপ্লবী পার্টির নেতা মমিনুর রহমান, সমাজতান্ত্রিক আন্দোলনের হামিদুল হক, শহীদ আসাদের বড় ভাই রশিদুজ্জামান, কাজী আব্দুল্লাহ আল মামুন প্রমুখ। সভা পরিচালনা করেন নজরুল ইসলাম।

নেতৃবৃন্দ আরো বলেন, সশস্ত্র মুক্তিযুদ্ধের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশ রাষ্ট্রের উত্থান ঘটে। কিন্তু শহীদেরা সাম্যভিত্তিক যে গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র-সমাজের স্বপ্ন দেখেছিলেন তা আজও অর্জিত হয়নি। ভোটাধিকারসহ জনগণের গণতান্ত্রিক অধিকার ভূলুন্ঠিত। দমন-পীড়ন, সন্ত্রাস-গুম-খুনের রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাসের মাধ্যমে আতঙ্কের পরিস্থিতি তৈরী করে স্বৈরতান্ত্রিক ফ্যাসিবাদী ক্ষমতাকে আরো পাকাপোক্ত করা হয়েছে। এক নিরঙ্কুশ কর্তৃত্ববাদী শাসনে রাষ্ট্রীয় সম্পদের বেপরোয়া লুন্ঠন, দুর্বৃত্তায়ন ও দলীয়করণের মাধ্যমে মুক্তিযুদ্ধের সাম্প্রদায়িক গণতান্ত্রিক চেতনার বিপরীতে দেশকে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। নেতৃবৃন্দ বলেন, ক্ষমতাসীন শাসকগোষ্ঠি নিজেদের ক্ষমতা কুক্ষিগত রাখতে গোটা রাষ্ট্রকে আজ জনগণের বিরুদ্ধে দাড় করিয়ে দিয়েছে। নেতৃবৃন্দ এই অবস্থার পরিবর্তনে বিদ্যমান স্বৈরতন্ত্র ও ফ্যাসিবাদের বিরুদ্ধে গণসংগ্রাম বিকশিত করতে দেশবাসীর প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। তারা বলেন, মজলুম জননেতা মওলানা ভাসানী ৬৮’র ডিসেম্বরে পাকিস্তানী স্বৈরশাসকদের বিরুদ্ধে যে গণআন্দোলন শুরু করেছিলেন সেই গণজাগরণই পরবর্তীতে গণঅভ্যুত্থানের রূপ। পাকিস্তানী স্বৈরশাসকদেরকে পিছু হটতে বাধ্য করে। আলোচনা সভার পর সংস্কৃতি পর্ষদ এর শিল্পী গণসঙ্গীত পরিবেশন করেন।

এদিকে নবকুমার ইনস্টিটিউটে মতিউর স্মৃতিস্তম্ভে পুস্পস্তবক অর্পণ এর আগে গণঅভ্যুত্থান বার্ষিকীতে জাতীয় কমিটির নেতৃবৃন্দ কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার থেকে পদযাত্রা করে নবকুমার ইনস্টিটিউটে মতিউর স্মৃতি বেদীতে পুস্পস্তবক অর্পণ করেন এবং সেখানে মতিউরের পরিবারের সদস্যদের সাথে সাক্ষাৎ করেন। এখানে সংক্ষিপ্ত সমাবেশে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে বক্তব্য রাখেন জাতীয় কমিটির সমন্বয়ক সাইফুল হক।

একই রকম সংবাদ


আলোর পরশ ( সম্পাদক ও প্রকাশক কর্তৃক প্রকািশত) ৩০২/১-এ-নতুন পল্টন ঢাকা ১০০০. http://alorparosh.com/

Copyright © 2017 alorparosh.com. All rights reserved.