November 6, 2018
সিঙ্গুরে জমছে ‘কালো মেঘ

আলোরপরশ নিউজঃ

পশ্চিমবঙ্গের সিঙ্গুরের কৃষকেরা হঠাৎ করেই তাঁদের প্রাপ্য সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। ২০১৩ সাল থেকে সিঙ্গুরের কৃষকদের পরিবারকে মাসে দুই হাজার রুপি ও দুই রুপিতে পরিবারপ্রতি ১৬ কেজি চাল দেওয়া শুরু করেন মমতা। সে সুবিধা না পেয়ে এখন কৃষকদের মনে ক্ষোভ জমতে শুরু করেছে।

পশ্চিমবঙ্গের হুগলি জেলার একটি থানা সিঙ্গুর। সিঙ্গুরের মাঝ দিয়ে চলে গেছে বর্ধমান-দিল্লি মহাসড়ক। সিঙ্গুর প্রচারের আলোয় উঠে আসে ২০০৬ সালে। সিঙ্গুরে একটি সস্তার গাড়ি কারখানা গড়ার জন্য বামফ্রন্ট সরকার টাটা গোষ্ঠীকে ৯৯৭ একর জমি লিজ দেয়। কিন্তু এ সিদ্ধান্তে খুশি হতে পারেননি ওই জমির একাংশের কৃষক। তাঁরা টাটাকে জমি না দেওয়ার ঘোষণা দেন। শুরু হয় জমি অধিগ্রহণবিরোধী আন্দোলন। আন্দোলনকে হাতে নেন তৎকালীন পশ্চিমবঙ্গের বিরোধীদলীয় নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। শুরু করেন রাজ্যব্যাপী সিঙ্গুরের জমি অধিগ্রহণবিরোধী আন্দোলন।

আন্দোলনের জেরে হিরো হয়ে যান মমতা। ২০১১ সালে এসে যায় পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভার নির্বাচন। সিঙ্গুরকে অস্ত্র করে সেই নির্বাচনে মমতা বামফ্রন্টের ৩৪ বছরের শাসনের অবসান ঘটিয়ে পশ্চিমবঙ্গে ওড়ান তৃণমূলের বিজয় নিশান। মুখ্যমন্ত্রী হন মমতা। অনিচ্ছুক কৃষকদের জমি ফেরত দেওয়ার প্রক্রিয়া শুরু করেন। কিন্তু বাদ সাধে হাইকোর্ট ও সুপ্রিম কোর্টে দায়েরকৃত এ–সংক্রান্ত মামলা। মমতা ২০১১ থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত পাঁচ বছরের শাসনে অনিচ্ছুক কৃষকদের ফিরিয়ে দিতে পারেননি জমি। ২০১৬ সালের পরবর্তী বিধানসভার ওই নির্বাচনেও জয়ী হন মমতা। দ্বিতীয়বারের জন্য আসেন ক্ষমতায়। ২০১৬ সালের ৩১ আগস্ট ভারতের সুপ্রিম কোর্ট রায় দেন সিঙ্গুরের জমি অধিগ্রহণপ্রক্রিয়া বৈধ ছিল না। মমতা জয়ী হন। এবার চূড়ান্তভাবে উদ্যোগ নিয়ে জমিও ফেরত দেন কৃষকদের।

কৃষকদের এত দিন মাসিক দুই হাজার রুপি করে ভাতা, সেই সঙ্গে দুই রুপিতে ১৬ কেজি করে চাল দিচ্ছিল মমতা সরকার। কিন্তু গত জুলাই মাস থেকে বন্ধ হয়েছে কৃষকদের সুবিধা। এ কারণে ফের ক্ষোভ ছড়িয়ে পড়েছে গোটা সিঙ্গুরে।

সিঙ্গুরের কৃষকেরা বলেছেন, এখনো অনেক কৃষক তাঁদের জমি কৃষির জন্য তৈরি করতে পারেননি। বহু জমি ডুবে আছে আগাছা আর পানিতে। কীভাবে বাঁচবেন তাঁরা?

সিঙ্গুরের তৃণমূল বিধায়ক রবীন্দ্রনাথ ভট্টাচার্য বলেন, বিষয়টি নিয়ে প্রশাসনের সঙ্গে তিনি কথা বলবেন।

More News


সম্পাদক ও প্রকাশক মো: জিল্লুর রহমান

বাসা ও অফিস: পুরাতন সাতক্ষীরা, যোগাযোগ: ০১৭১৬৩০০৮৬১ - e-mail: zsatkhira@gmail.com